আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতির ভারত সফর

ফুটবল ও দক্ষিণ আমেরিকার  ট্যাঙ্গো নৃত্যশৈলীর জন্য বিশ্বে সুপরিচিত আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতি সম্প্রতি ভারত সফরে এলেন। ফুটবলের স্বর্গ রাজ্য আর্জেন্টিনার পথে ঘাটে চোখে পড়ে বিশ্ব ফুটবলের কিছু প্রবাদ প্রতীম ব্যক্তিত্ব মারাদোনা, বাতিসতুতা ও মেসি’র মূর্তি। দেশটি ট্যাঙ্গো জাতীয় দিবস উদযাপন করে। এখানে আছে ট্যাঙ্গো স্মৃতি সৌধ। এই নৃত্য শৈলীকে ইউনেসকো বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। সাংস্কৃতিক দিক থেকে সমৃদ্ধ ল্যাতিন আমেরিকার একটি প্রথম সারির দেশ হিসেবে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক অঙ্গনেও আর্জেন্টিনার ভূমিকা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ।

বর্তমান রাষ্ট্রপতি মাউরিসিও ম্যাকরি’র সরকার বহু দেশের সঙ্গে তার বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধিতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে। আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে আর্জেন্টিনার প্রভাব লক্ষ্যনীয়। কয়েক মাস আগেই দেশটি জি-২০ শিখর সম্মেলনের আয়োজন করে। আর্জেন্টিনার বিদেশ নীতির অঙ্গ হিসেবে দেশটি এশিয়ার দেশগুলির সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের ওপর বিশেষ প্রাধান্য দিচ্ছে।

এরই প্রেক্ষাপটে আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতির সাম্প্রতিক ভারত সফরের বিশ্লেষণ ও মূল্যায়ন প্রয়োজন। রাষ্ট্রপতি মাকরি তাঁর দেশে ভারতীয় বিনিয়োগ আকর্ষণ ও নতুন দিল্লির সঙ্গে গঠনমূলক অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার প্রয়োজনের কথা বলেছেন। অর্থনৈতিক দিক থেকে বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী দেশ ভারতকে আর্জেন্টিনার অংশীদার দেশ হিসেবে পাশে পেতে তিনি বিশেষ আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন। ভারত ও আর্জেন্টেনার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার এ বছর ৭০-তম বার্ষিকীতে সে দেশের রাষ্ট্রপতির নতুন দিল্লি সফর বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ।  রাষ্ট্রপতির সফর সঙ্গী শতাধিক সদস্যের একটি ব্যবসায়িক প্রতিনিধিদল মুম্বাইয়ে শিল্প জগতের কর্ণধারদের সঙ্গে বৈঠক করে গেলেন। ল্যাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশের তুলনায় আর্জেন্টিনা ও ভারতের মধ্যে সরকারী পর্যায়ে নিয়মিত উচ্চ স্তরীয় সফর বিনিময় হয়ে থাকে। গত বছর নভেম্বরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জি-২০ শিখর সম্মেলন উপলক্ষ্যে আর্জেন্টিনা সফর করেন। আর্জেন্টিনা, পরমাণু সরবরাহ গোষ্ঠী -এন এস জি-তে  সদস্য পদের জন্য ভারতের দাবির অন্যতম সমর্থনকারি দেশ।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতি মাউরিসিও মাকরি’র মধ্যে  নতুন দিল্লিতে প্রতিনিধি পর্যায়ের বৈঠকের পর জারি করা একটি যৌথ বিবৃতিতে উভয় পক্ষই দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতাকে কৌশলগত অংশীদারিত্বের পর্যায়ে উন্নীত করার সংকল্প ব্যক্ত করেছে।

বৈঠকে উভয় নেতা দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা ও অংশীদারিত্বের অগগতিতে সন্তোষ ব্যক্ত করেন। শ্রী মোদি ও মাউরিসিও মাকরি তেজঃশক্তি, খনি, কৃষি, খাদ্য নিরাপত্তা, পরমাণু সহযোগিতা, উপগ্রহ নির্মাণ ও উৎক্ষেপণ সহ মহাকাশ বিজ্ঞান ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা মজবুত করার সংকল্প ব্যক্ত করেন।

আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতির এই সফরে দুটি দেশ প্রতিরক্ষা, অসামরিক পরমাণু সহযোগিতা, পর্যটন, ওষুধ শিল্প ও কৃষি সহ একাধিক ক্ষেত্রে ১০ টি সমঝোতা স্মারক পত্র- MOU স্বাক্ষর করেছে। তথ্য ও সম্প্রচার ক্ষেত্রে সহযোগিতার অঙ্গ হিসেবে প্রসারভারতী ও  আর্জেন্টিনার যুক্তরাষ্ট্রীয় সংবাদ ব্যবস্থাপনা সংস্থার মধ্যে সহযোগিতা বিষয়ক একটি সমঝোতা স্মারক পত্র- MOU  স্বাক্ষর করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক বছর গুলিতে আর্জেন্টিনা সহ ল্যাতিন আমেরিকার দেশগুলির সঙ্গে ভারতের বাণিজ্য সম্পর্ক উল্লেখযোগ্য মাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে। টাকার অংকে ল্যাতিন আমেরিকার সঙ্গে চীনের বাণিজ্যের পরিমাণ ভারতের তুলনায় অনেক বেশি হলেও এই বাণিজ্যের মধ্যে পণ্য  রপ্তানির পরিমাণই বেশি। অপরদিকে ভারতের রপ্তানির একটা সিংহ ভাগ হল পরিষেবা রপ্তানি।

বিশ্ব অর্থনীতি ও রাজনীতিতে ভারতের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের কারণেই  নতুন দিল্লি ল্যাতিন আমেরিকার দেশগুলির সম্ভ্রম আদায় করে নিতে পেরেছে।

এর ফলে আগামী দিনে এই অঞ্চলের সঙ্গে ভারতের যোগাযোগ ও সম্পর্ক যে এক নতুন উচ্চতায় পৌঁছুবে সে ব্যাপারে সন্দেহের কোনও অবকাশ নেই। (মূল রচনাঃ-আশ নারায়ণ রায়)