শ্রীলঙ্কার বিদেশমন্ত্রীর প্রথম ভারত সফর

For Sharing

শ্রীলঙ্কার বিদেশ, দক্ষতা উন্নয়ন, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী দীনেশ গুনাবর্ধনা  সম্প্রতি ভারত  সফর করলেন।  এটি ছিল আধিকারিক পর্যায়ে তাঁর প্রথম বিদেশ সফর। তাঁর সঙ্গে ছিলেন চারজনের একটি প্রতিনিধি দল। গতবছর নভেম্বর মাসে শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি গতাবায়া রাজাপাক্ষসের ভারত সফরের পর বিদেশ মন্ত্রীর এই সফর। দীনেশ গুনাবর্ধনা  এই সফরকালে  ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডঃ এস জয়শঙ্করের সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করেন। এছাড়াও তিনি দক্ষতা উন্নয়ন ও শিল্প উদ্যোগ মন্ত্রী মহেন্দ্র নাথ পান্ডে, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রী সন্তোষ কুমার গাঙ্গোয়ারের সঙ্গেও বৈঠক করেন। শ্রীলঙ্কার বিদেশ মন্ত্রী ভারতের বণিক সংগঠন FICCI’র সদস্যদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। এছাড়াও তিনি নতুন দিল্লির  বিজ্ঞান ও পরিবেশ কেন্দ্র এবং  মহাবোধি সোসাইটি পরিদর্শন করেন।

প্রতিনিধি পর্যায়ের বৈঠকে, উভয় দেশের বিদেশ মন্ত্রীর মধ্যে বিনিয়োগ, নিরাপত্তা, উন্নয়ন সহায়তা, মৎস্য পালন, চলতি  প্রকল্পের উন্নয়ন সহযোগিতা, পর্যটন, শিক্ষা এবং সংস্কৃতি সহযোগিতা সহ বিভিন্ন  দ্বিপাক্ষিক ক্ষেত্রে  উভয় দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও মজবুত করার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির ভারত সফরকালে,  কৌশল বিকাশ, দক্ষতা উন্নয়ন সহ নতুন নতুন  ক্ষেত্রে বিভিন্ন সম্ভাবনার বিষয় খতিয়ে দেখার গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছিলেন।  সে দেশের বিদেশ মন্ত্রী তা পুনরায় তুলে ধরেন। ডঃ জয়শঙ্কর, শ্রীলঙ্কার এই উদ্যোগে ভারতের  পূর্ণ সমর্থনের আশ্বাস দেন। এই সব ক্ষেত্রে উভয় দেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক পত্র MoU স্বাক্ষরিত হবার বিষয়েও আলোচনা হয়। উভয় নেতা জলবায়ু পরিবর্তন, সন্ত্রাস মোকাবিলা সহ  আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন বিষয়ে মত বিনিময় করেন।

রাষ্ট্রপতি গতাবায়ু, ভারত সফরকালে সে দেশে আটক ভারতের ১৫ জন মৎস্যজীবী এবং ৫২টি ডিঙ্গি নৌকোকে  মুক্তি দেবার ঘোষণা করেছিলেন, ডঃ জয়শঙ্কর সেই লক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপের অগ্রগতির বিষয়ও খতিয়ে দেখেন। শ্রীলংকা জানিয়েছে, এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।

শ্রীলংকার বিদেশ মন্ত্রী দেশে ফিরে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ভারতে বসবাসকারী শ্রীলঙ্কার ৩০০০ শরণার্থী যারা দেশে প্রত্যাবর্তনে ইচ্ছুক, শ্রীলঙ্কা সরকার তাঁদের দেশে ফিরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে এবং সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।  আশা করা হচ্ছে, প্রথম দলটিকে আগামী মাসে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে। শ্রীলঙ্কার বিদেশ মন্ত্রী জানিয়েছেন,  দ্বীপরাষ্ট্রের উত্তর এবং পূর্বাঞ্চলের স্থানীয় সংস্থার মাধ্যমে  প্রত্যাবর্তনকারীদের পরিচয় চিহ্নিতকরণের পর তাঁদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে। উল্লেখ্য, উভয় দেশ ভারতে বসবাসকারী শ্রীলঙ্কার শরণার্থীদের প্রত্যাবর্তন বিষয়ে বহু দিন ধরেই আলোচনা চালিয়ে আসছে। বর্তমানে রাষ্ট্রসংঘ মানবাধিকার কমিশন UNHRC শ্রীলংকায় প্রত্যাবর্তনে ইচ্ছুক শরণার্থীদের যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। এর আগে, পুনর্বাসন বিষয়ে শ্রীলঙ্কা সরকারের আশ্বাসন ছাড়া শরণার্থীদের অনেকেই দেশে ফিরতে ইচ্ছুক ছিলেন না। এই প্রেক্ষিতে শ্রী গুণাবর্ধনার বিবৃতি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ।

ভারত ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে নিরাপত্তা, পর্যটন, সংস্কৃতি, শিক্ষা, দক্ষতা  এবং পরিকাঠামো উন্নয়ন ক্ষেত্রে মজবুত সম্পর্ক রয়েছে। যদিও মৎস্যপালন এবং শ্রীলংকায় ভারতের অর্থ সহায়তায় উন্নয়ন প্রকল্প বিষয়ে কিছু সমস্যা রয়েছে। তবে ২০১৯ সালের নভেম্বরে সে দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের পর দুই দেশের মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের আলোচনা এবং সম্প্রতি দীনেশ গুণাবর্ধনার ভারত সফরের  ফলে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও মজবুত হবার সঙ্গে সঙ্গে  এই সমস্ত সমস্যার কার্যকর এবং দীর্ঘস্থায়ী সমাধান হবে বলেও আশা করা হচ্ছে।

(মূল রচনাঃ  গুলবিন সুলতানা)